কৃষি বিপণন অধিদপ্তরে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ 2020

কৃষি বিপণন বিভাগের অর্থনৈতিক বিকাশের সকল পর্যায়ে বিপণন এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। উত্পাদনের প্রযুক্তিগুলির উত্পাদন সিদ্ধান্ত এবং স্থায়িত্ব নির্ধারণের আগেই বিপণন শুরু হয়। সুতরাং, কৃষি উত্পাদন বাড়ানো এবং টেকসই করার জন্য বিপণনের ভূমিকার উপর বেশি জোর দেওয়া যায় না। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ড্যাম একটি দক্ষ কৃষি বিপণন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় কাজ করে চলেছে। দীর্ঘ ক্লান্তিকর যাত্রা শেষে ড্যাম তার বর্তমান অবস্থায় পৌঁছেছে।

জব সার্কুলার 2020 সম্পর্কিত তথ্য পেতে, আপনি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারেন । আপনি যদি এই চাকরি জন্য আবেদন করতে চান তবে আপনার নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে আপনার আবেদন জমা দেওয়া  উচিত।আগ্রহী ও যোগ্য ব্যক্তিদের আবেদন করার জন্য আহব্বান করা হচ্ছে। বিজ্ঞপ্তির সকল তথ্য নিম্নে প্রদান করা হলঃ-

পতিষ্ঠানের নামঃ কৃষি বিপণন অধিদপ্তর
যোগ্যতাঃ ৮ম শ্রেণী/এইচএসসি/স্নাতক পাস
পদ সংখাঃ নিম্নে দেখুন
বেতনঃ নিম্নে দেখুন
আবেদনের মাধ্যমঃ ডাকযোগে/অনলাইনে/ইমেইলের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে।
আবেদনের সময়সীমাঃ

কৃষি বিপণন অধিদপ্তরে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ 2020

Visit Website: http://dam.portal.gov.bd

Visit Website: http://dam.portal.gov.bd

 

বিপণন ব্যবস্থা অর্থনৈতিক উন্নয়নের সকল পর্যায়ে একটি কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করে। বিপণন বিবেচনা শুরু হয় উৎপাদন সিদ্ধান্ত এবং উৎপাদন প্রযুক্তি নির্ধারণের  আগেই। সুতরাং, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা এবং বর্ধিত উৎপাদন বজায় রাখার ক্ষেত্রে বিপণনের ভুমিকা অনস্বীকার্য।

১৯৩৪ সাল থেকে …

  • ১৯৩৪ সালে কৃষি বিপণন উপদেষ্টা বিপণন বিভাগ তৈরি করার জন্য তৎকালীন সরকারের কাছে একটি পরিকল্পনা জমা দেন। সরকার প্রকল্পটি গ্রহণ করে এবং ১৯৩৫ সালে কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক বিপণন কর্মী নিয়োগ করে।
  • বিপণনের গুরুত্ব ও সম্ভাবনা বুঝতে পেরে অবিভক্ত বাংলার সরকার ১৯৪৩ সালে স্থায়ী ভিত্তিতে কৃষি ও শিল্প অধিদপ্তরের অধীনে কৃষি বিপণন বিভাগ গঠন করে.
  • স্বাধীনতার পর ১৯৫৪ সালে, পূর্ব পাকিস্তান সরকার কৃষি, সমবায় এবং ত্রাণ অধিদপ্তরের অধীনে কৃষি বিপণন পরিদপ্তরের অনুমোদন দেয়।
  • ১৯৬০ সালে, প্রাদেশিক পুর্ণগঠন কমিটি কৃষি বিপণন পরিদপ্তরের বিভাগ, জেলা  এবং মহুকমা পর্যায়ে লোকবল নিয়োগের অনুমোদন দেয়।
  • ১৯৮২ সালে, বাংলাদেশ সরকার ব্রিগেডিয়ার এনামুল হক খানের নেতৃত্বে গঠিত সাংগঠনিক কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে/বিভাগ পুনর্গঠন করে। তখন, কৃষি বিপণন পরিদপ্তরের গুরুত্ব, অবস্থা, এবং কর্মপরিধি বিবেচনা করে এর নাম মর্যাদা উন্নত করে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *